জনসংখ্যা কী?(What is population)?

 Population: evs mcq,environmental studies,ecological nich, species, gloger rules etc.

sunderbone biospher reserve,ghorial,pneumetaphore.,crocodile,nature,ecosystem
Habitat of Crocodile

 Population: evs mcq,environmental studies,ecological nich, species, gloger rules etc.


বসতি
 (Habitat) :
– 
প্রাকৃতিক পরিবেশের যে নির্দিষ্ট স্থানে কোন জীব বা জীবগোষ্ঠী বসবাস করে তাকে বসতি বা হ্যাবিটেট বলে ।

ইকোলজিক্যাল নিচ (Ecological niche) :
বাস্তুতন্ত্রের অন্তর্গত জীবগোষ্ঠীতে কোন জীবের অবস্থান ও ক্রিয়া প্রতিক্রিয়াকারী ভূমিকাকে  ইকোলজিক্যাল নিচ (Ecological niche) বলে ।

ইকোটোন (Ecotone) :
যে সংযোগস্থলে দুটি প্রধান জীব সম্প্রদায় বা কমিউনিটির সংযোগ ঘটে,সেই স্থানকে ইকোটন (Ecotone) বলে ।
ecotone,ecosystem
Ecotone

ইকোলজিক্যাল ইন্ডিকেটর (Ecological indicator) :- 
কিছু কিছু আপেক্ষিক শর্ত কোন নির্দিষ্ট বসতি অঞ্চলে কোন প্রজাতির জীব পাওয়া যাবে তা নির্ধারণ করে ,তাদের ইকোলজিক্যাল ইন্ডিকেটর (Ecological indicator) বলে । 

যেমন – 
1.মে ফ্লাই (May fly) : জলে অক্সিজেনের পরিমান বৃদ্ধি জানা যায় ।
2.ই.কলি  : জলদূষণ ।
3. ফুসিলিনিজ প্রোটোজোয়া : পেট্রোলিয়াম সঙ্চিত  আছে ।
4.রুমেক্স : মাটি খুব আম্লীয় প্রকৃতিক ।
5.লিপ্পিয়া  : মাটিতে নাইট্রজেনের পরিমান বৃদ্ধি ।
6.স্যালস্যোলা  : লবনাক্ত জল ।
7.কারা : জল দূষণ ঘটেছে ।

এজ ইফেক্ট (Edge effect) : - 
ইকোটনে যখন প্রজাতির সংখ্যা বাড়তে থাকে তখন প্রজাতির উচ্চ ঘনত্বের পপুলেশন  গঠন করার যে প্রবণতাকে (Edge effect) এজ ইফেক্ট বলে ।

landscape, ecotone,edge effect, mountain lake
Edge effect


ল্যান্ডস্কেপ (Landscape) : -
প্রাকৃতিক সীমানাযুক্ত কোন নির্দষ্ট ভোগৌলিক অঞ্চলে একাধিক ভিন্ন ধরনের বাস্তুতন্ত্র থাকলে,তাকে ল্যান্ডস্কেপ (Landscape) বলে ।

মাইক্রোক্লাইমেট (Microclimate) :–
কোন জীবের চারপাশে অর্থাৎ ছোট্ট পরিসর অঙ্চলে জলবায়ুর যে স্থানীয় পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় তাকে মাইক্রোক্লাইমেট (Microclimate) বলে ।

জীব কী :– 
বাস্তুবিদ্যার ক্ষুদ্রতম একক যার নিজস্ব সত্ত্বা আছে ।

প্রজাতি (species) :- 
একই আকার –আকৃতি ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য যুক্ত জীবের  যে সব  থেকে ক্ষুদ্রতম দল বা গোষ্ঠী নিজেদর মধ্যে যৌন জনন সম্পাদনে ও অপত্য উৎপাদনে সক্ষম হয় তাদের প্রজাতি( species) বলে ।
যেমনঃ- মানুষ –স্যাপিয়েন্স (sapiens)

পপুলেশন (population) :-
একটি বিশেষ ভৌগোলিক অঞ্চলে নির্দিষ্ট সময়ে বসবাসকারী একটি প্রজাতির জীবগুলির সমষ্টিকে পপুলেশন (population) বা জনসংখ্বযা লে ।

flamingo,water bird, population,
Flamingo,Water Bird, Population,


কমিউনিটি (community) :-
একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে  বসবাসকারী সমস্ত জীবিত প্রজাতির পপুলেশনের মধ্যে যে পারস্পরিক আন্তঃক্রিয়া পরিলক্ষিত হয়,তাকে সামগ্রিকভাবে কমিউনিটি (community) বলে ।

সাকসেশন (Succession):- 
একটি কমিউনিটি একটি নির্দিষ্ট  বা ফাঁকা স্থান থেকে শুরু হয় এবং তা সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে প্রজাতির গঠন ও পরিবর্তিত হয় ,একে ইকোলজিক্যাল সাকসেশন বলে ।


গ্লগার নিয়ম (gloger rules )-  

Hyla নামক এক ব্যাঙের উচ্চ তাপমাত্রায় দেহত্বকে  ঘন রঙ্গক সৃষ্টি হয় একে গ্লগার নিয়ম বলে ।গ্লগার্সের নিয়মটি স্তরে প্রকাশিত হয়1.প্রজাতির স্তরগুলি বিভিন্ন বাসস্থান  বিভিন্ন অক্ষাংশে এবং 2.প্রজাতির সমাবেশে বিভিন্ন রঙের স্কিম রয়েছে

স্তন্যপায়ীদের মধ্যেমেরু এবং স্বচ্ছ অঞ্চলে একটি প্রব প্রবণতা রয়েছে তা গাঢ় ত্বক রঙে প্রমান মেলে ,এই ক্ষেত্রে অন্তর্নিহিত কারণটি সম্ভবত নিম্ন অক্ষাংশে আরও তীব্র সৌর UV বিকিরণের বিরুদ্ধে সুরক্ষা করার জন্য তবে কিছু নির্দিষ্ট ভিটামিন উৎপাদনের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণে ইউভি বিকিরণ শোষণের প্রয়োজন হয়বিশেষত ভিটামিন ডি

পাখির ক্ষেত্রে গ্লোগারের নিয়মের একটি ব্যাখ্যা  হল  পাখির গাঢ় পালকগুলির বর্ধিত প্রতিরোধ বা বাশিলাস ল্যাচেনফর্মিসের মতো চুলের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া আর্দ্র পরিবেশে পালকগুলিতে  পূর্ণ থাকে এবং আর্দ্র পরিবেশে মাইক্রোবায়াল বৃদ্ধির জন্য আরও উপযুক্ত। গাঢ় পালক আরো স্থিতিস্থাপক  গাঢ় বাদামী থেকে কালো হয় যখন গরম এবং আর্দ্র অঞ্চলে যায়যখন শুষ্ক অঞ্চলে, তখন বেলে রঙ লাল হয়


এই নীতিটি মানুষের জনসংখ্যার মধ্যেও স্পষ্টভাবে প্রদর্শিত হয়েছে বিভিন্ন মানুষের তুলনায় গাঢ় বর্ণবিশিষ্ট বলে মনে হয় , যাদের গাঢ় ত্বক আছে তাদের অত্যন্ত উচ্চতর ইউভি বিকিরণটির অভিযোজনঅন্য ক্ষেত্রে ইউভি বিকিরণ শোষণের জন্য খাদ্য দ্বারা প্রাকৃতিকভাবে ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ হয়


Hyla Meridionalis,The Frog,Amphibian
Hyla Meridionalis

*******************


1 comment:

Theme images by konradlew. Powered by Blogger.